অনুসন্ধান - অন্বেষন - আবিষ্কার

জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে চট্টগ্রামে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল

১৭

নিউজ হওয়ার সাথে সাথেই আপডেট পেয়ে যান আপনার ডিভাইসে, এখনি সাবষ্ক্রাইব করুন

.

সব ধরনের জ্বালানী তেলের অযৌক্তিক ও অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল বের করে চট্টগ্রাম মহানগর যুবদল।

আজ শনিবার (৬ আগষ্ট) বিকেলে অনুষ্ঠিত মিছিল পূর্ব বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দীপ্তি বলেছেন, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের ঊর্ধ্বগতিতে দিশেহারা জনগণ। এরিমধ্যে ডিজেল, কেরোসিন, অকটেন, প্রেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধির বিরূপ প্রভাব পড়বে জনজীবনে। জ্বালানি তেলের উত্তাপে পুড়বে পুরো দেশ। বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ালেও বর্তমানে তেলের বাজার নিম্নমুখী। এই সময়ে বাজার পর্যবেক্ষণ না করে, কেবল আইএমএফের প্রেসক্রিপশন বাস্তবায়নে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক ও গণবিরোধী। অনতিবিলম্বে বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার করে, পূর্বের মূল্য বহাল রাখার দাবি জানানো হয়। অন্যথায় জনগণকে সাথে নিয়ে দুর্বার গণ আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বগতিতে দিশেহারা দেশের সাধারণ মানুষের চরম এক দুঃসময়ে জ্বালানি তেলের দাম এক লাফে প্রায় ৫০ শতাংশের কাছাকাছির বাড়ানো ফলে জনজীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে আসবে। পরিবহন ব্যয় দ্বিগুণ হওয়ার পাশাপাশি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য সাধারণ মানুষের সামর্থের বাইরে চলে যাবে। পরিবহন সেক্টরে অস্থিরতা দেখা দেবে। শিল্প উৎপাদন ব্যাহত হবে, ফলে আমদানির উপর নির্ভরশীলতা বাড়বে। প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে অনেক ছোট ছোট শিল্প-কলকারখানা বন্ধ হয়ে যাবে। ফলে একদিকে আমদানি ব্যয় বৃদ্ধির মধ্যে দিয়ে জাতীয় অর্থনীতির উপর চাপ আরও বাড়বে।

মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ শাহেদ বলেন, ডিজেল, কেরোসিন, অকটেন, প্রেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে বেকারত্ব সমস্যা আরও প্রকট হবে। আমাদের দেশে সাধারণত তেলের দাম যে পরিমাণ বাড়ে তার থেকে কয়েকগুণ বেশি বাড়ে বাস ও অন্যান্য গণপরিবহন ভাড়া। পণ্য পরিবহন ভাড়াও ইচ্ছেমতো বাড়িয়ে দেয় ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিকেরা। বাসের ক্ষেত্রে সরকার, বাসের মালিক-শ্রমিক নেতারা মিলেমিশে একচেটিয়াভাবে বাসের ভাড়া যে পরিমাণ বাড়ায়, বাসে তার কয়েকগুণ বাড়তি ভাড়া আদায় করে। সরকার বাসের ভাড়া বাড়িয়ে দিলেও সরকার নির্ধারিত ভাড়ার তালিকা অনুযায়ী বাসে আদায় হচ্ছে কিনা তা তদারকি করা বা বর্ধিত ভাড়া আদায় বন্ধে তেমন কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারে না।

পরে এক বিক্ষোভ মিছিল নগরীর কাজীর দেউড়ী এম এ আজিজ স্টেডিয়াম মোড় থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।

বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সিনিয়র সহ সভাপতি ইকবাল হোসেন, সহ সভাপতি এম এ রাজ্জাক, ইকবাল হোসেন সংগ্রাম, ফজলুল হক সুমন, মো. জাহাঙ্গীর আলম, আবদুল করিম, আবদুল গফুর বাবুল, সাহাব উদ্দিন হাসান বাবু, মোহাম্মদ মুছা, মিয়া মো. হারুন, অরূপ বড়–য়া, মোহাম্মদ আলী সাকী, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসাইন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর, মো. সেলিম, আবদুল হামিদ পিন্টু, তৌহিদুল ইসলাম রাসেল, রাজন খান, হেলাল হোসেনসহ সাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান টিপু, জাহাঙ্গীর আলম বাচা, জাফর আহমদ খোকন, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য নূর হোসেন উজ্জ্বল, জিল্লুর রহমান জুয়েল, মোহাম্মদ সাগীর, মহিউদ্দিন মুকুল, আসাদুজ্জামান রুবেল, নুরুল আমিন, সহ সম্পাদক বৃন্দ মো. আতিকুর রহমান, কমল জ্যোতি বড়ুয়া, মো. মনজুর আলম মনজু, মো: সাহেদুল ইসলাম, হামিদুল হক, আনোয়ার হোসেন, ফারুক হোসেন স্বপন, গুলজার হোসেন মিন্টু, জাহাঙ্গীর আলম বাবু, হোসেন-উজ-জামান, ইব্রাহিম খান, মিজানুর রহমান দুলাল, মিফতাহ উদ্দিন শিকদার টিটু, মো. ইউসুফ, জাহাঙ্গীর আলম মানিক, মো. বেলাল উদ্দিন, দেলোয়ার হোসেন, থানা যুবদলের আহবায়ক গিয়াস উদ্দিন টুনু, বজল আহমেদ, শফিউল আজম, মোশাররফ আমিন সোহেল, নগর যুবদলের সদস্য লতিফুল বারী সুমন, মাহাবুব খান জনি, আবদুস সাত্তার, আজিজ চৌধুরী, থানা যুবদলের সদস্য সচিব মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু, শওকত খান রাজু, তাজ উদ্দিন তাজু, মো. মুসা, হাবিবুল্লাহ খান রাজু, সারোয়ার হোসেন, সি: যুগ্ম আহবায়ক শেখ রাসেল, মো. ইয়াছিন, মো. নূর খান, সাইফুল ইসলাম রুবেল, খালেদ সাইফুল্লাহ, সাজ্জাদ আহমেদ সাদ্দাম, মোর্শেদ কামাল, ইউনুস মুন্না, শাহেদ হোসেন খান পারভেজ, দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ, আনোয়ার হোসেন, ওয়ার্ড যুবদলের এস এম আলী, মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, জাবেদ হোসেন, মো. হাসান, মোহাম্মদ ইউনুছ, মো. এসকান্দর, জহিরুল ইসলাম জহির, মো. সাইফুল আলম, মো: আবু তৌহিদ, মো. জাবেদ হোসেন, রাসেল খান, মো. সাইফুলসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

নিউজ হওয়ার সাথে সাথেই আপডেট পেয়ে যান আপনার ডিভাইসে, এখনি সাবষ্ক্রাইব করুন