অনুসন্ধান - অন্বেষন - আবিষ্কার

চট্টগ্রামে মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা উদ্ধোধন

তেলের দাম বাড়ার পর পদত্যাগ করতে চেয়েছিলাম: বাণিজ্য মন্ত্রী

২২

নিউজ হওয়ার সাথে সাথেই আপডেট পেয়ে যান আপনার ডিভাইসে, এখনি সাবষ্ক্রাইব করুন

.

পদের প্রতি আমার লোভ নেই উল্লেখ্য বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, তেলের দাম বাড়ার পর বাম দল আমার পদত্যাগ দাবি করেছিল। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি বলে ছিলাম পদত্যাগ করবো কিনা ? প্রধানমন্ত্রী আমাকে বললেন, যারা পদত্যাগ চেয়েছে তারা তেলের দাম কমাতে পারবে কিনা? ব্রাজিল আর্জেন্টিনা, মালয়েশিয়া-ইন্দোনেশিয়ায় তেলের দাম না কমালে এটি সম্ভব?

মন্ত্রী আজ মঙ্গলবার (৩১ মে) বিকেলে চট্টগ্রাম চেম্বার ও কমার্স আয়োজিত মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা (সিআইটিএফে)র উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন। নগরী পলোগ্রাউন্ড মাঠে এ উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

মন্ত্রী বলেন, ২০২৬ সাল বেশি দূরে নয়, বাংলাদেশের অবস্থান বদলে গেছে। চার বছর আগে মন্ত্রী ছিলাম না, দিল্লি গেছি। একজন পাকিস্তানি জানতে চাইল, তোমাদের প্রধানমন্ত্রীর হাতে জাদু আছে? আমাদের অর্থনীতি তাদের কাছে বিস্ময়। দেশকে এগিয়ে নিতে সরকারের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের অবদান আছে। সরকার ব্যবসা করবে না, ব্যবসায় সহায়তা করবে। কোভিড নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর গোষ্ঠী উদ্ধার হয়েছিল। বৃক্ষ তার ফলে পরিচয়। বাংলাদেশ সরকার অ্যাডভান্সড চিন্তা করেছিল। তেলের দাম ভারতে ১৫ টাকা, পাকিস্তানে ৩৬ টাকা বেশি। ১০ শতাংশ তেল হয় দেশে। গম, ডাল আমদানি করতে হয়। আমাদের চেষ্টার ত্রুটি নেই। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এক কোটি মানুষকে তেল চিনি ছোলা দিয়েছি সাশ্রয়ী মূল্য। ৫ কোটি মানুষ উপকৃত হচ্ছে। যত দিন পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হয় ততদিন এটি চলবে। ভর্তুকি দিতে হবে।

.

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের সঙ্গে বহুকালের যোগাযোগ। এ মাটি অনেক বীর, আউলিয়ার দেহ রেখেছে। সাগরের মতো বিশাল মন চট্টগ্রামের মানুষের। ছোটবেলা থেকে শুনে এসেছি বাণিজ্যে বসতি লক্ষ্মী। চট্টগ্রাম অর্থনীতির লাইফ লাইন, গেটওয়ে। চট্টগ্রামের ওপর আমাদের নির্ভর করতে হয়। সেই চট্টগ্রামকে আরও গুরুত্ব দেওয়া দরকার। বন্দরকে আপগ্রেড করতে হবে। আশাকরি ৬০ বিলিয়ন ডলার রফতানি করতে পারব এবার। মহাসড়কে ১৩ টনের বাধা পণ্যের ওপর পড়বে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। চট্টগ্রাম এলে পাহাড়ের মাঝে শহর দেখতাম। সমুদ্রের হাতছানি দিত। একসময় চট্টগ্রাম পর্যটন নগরী ছিল। ঢাকা থেকে ট্রেন কক্সবাজার পর্যন্ত যাবে। ১৫ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে সেই চট্টগ্রাম চাই।

.

বিশেষ অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য এমএ লতিফ, চসিক মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী, সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক সভাপতি এমএ লতিফ এমপি, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর, চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, সিআইটিএফ চেয়ারম্যান, চেম্বার পরিচালক একেএম আকতার হোসেন বক্তব্য রাখেন।

মেলার ২৯তম এ আসরে ৩১০টিরও বেশি প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ করছে। প্রায় ৪ লাখ বর্গফুট এলাকাজুড়ে পণ্য প্রদর্শন করবে ভারত, থাইল্যান্ড ও ইরান। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে এ মেলা।

নিউজ হওয়ার সাথে সাথেই আপডেট পেয়ে যান আপনার ডিভাইসে, এখনি সাবষ্ক্রাইব করুন